1. azadzashim@gmail.com : বিডিবিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম :
  2. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :

রোহিঙ্গা নিধন হিটলারের ইহুদি হলোকাস্টের মতো ভয়াবহ : মিয়ানমারের আইনজীবী

  • Update Time : শনিবার, ৭ মার্চ, ২০২০
  • ৭৫ Time View

ডিবিডিনিউজ ডেস্ক : ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসের (আইসিজে) গণহত্যা ট্রাইব্যুনালে গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলায়, মিয়ানমার সরকারের পক্ষে আইনজীবী হিসেবে কাজ করছেন প্রফেসর উইলিয়াম শিবাস।

সম্প্রতি ফরটিফাই রাইটসের কল্যাণে আল জাজিরার ২০১৩ সালের একটি ডকুমেন্টারি ‘দ্য হিডেন জেনোসাইড’ আলোচনায় এসেছে। রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর মিয়ানমার সরকারের চালানো আগ্রাসনকে উপজীব্য করে ওই ডকুমেন্টারি নির্মাণ করেন আল জাজিরার সাংবাদিক এবং অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী নির্মাতা ফিল রিস। ‘দ্য হিডেন জেনোসাইড’ ডকুমেন্টারিতে ২১ মিনিটের একটি সাক্ষাৎকার দেন প্রফেসর উইলিয়াম শিবাস।

ওই সাক্ষাৎকারে তিনি নির্মাতার এক প্রশ্নের জবাবে বলেছেন, মিয়ানমার সরকার রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর যে পদ্ধতিতে নিপীড়ন চালাচ্ছে, তা নাৎসি অধিকৃত ইউরোপে হিটলারের ইহুদি হলোকাস্টের মতো ভয়াবহ।

তিনি বলেন, সেইখানে যেমন একটি নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠীকে টার্গেট করে তাদেরকে সমগ্র দুনিয়া থেকে আলাদা করে তাদেরকে জাতিগতভাবে নির্মূল করার চেষ্টা করা হয়েছিল, মিয়ানমারের রাখাইনেও অনুরূপ ঘটনার প্রমাণ আমরা পাচ্ছি। রাখাইনে সাধারণ মানুষের প্রবেশ ও বের হওয়ার অধিকার পর্যন্ত খর্ব করে রেখেছে সরকার।

এদিকে, ডিসেম্বরের ১২ তারিখে আইসিজেতে শুনানির সময় গাম্বিয়ার আইনজীবী ‘দ্য হিডেন জেনোসাইড’ ডকুমেন্টারিতে প্রফেসর শিবাসের বক্তব্য হুবহু তুলে ধরে বলেন, শিবাস বলেছিলেন মিয়ানমারে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর সঙ্গে সরকার যা করেছে তাকে গণহত্যা হিসেবে উল্লেখ করলে, গণহত্যা শব্দটিও কলুষিত হয়।

পরে, আত্মপক্ষ সমর্থন করতে গিয়ে শিবাস বলেন, আল জাজিরার ওই সাংবাদিক তার বক্তব্যকে ভুলভাবে উপস্থাপন করেছেন। তিনি আরও বলেন, ওই সাংবাদিক কৌশলে তার মুখ থেকে ‘গণহত্যা’ শব্দটি বের করার চেষ্টা করছিলেন।

ফরটিফাই ডট ওআরজি নামের একটি ওয়েবসাইট থেকে সম্প্রতি প্রফেসর উইলিয়াম শিবাসের ওই সাক্ষাৎকারের সম্পূর্ণ ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। ওই সাক্ষাৎকারে দেখা যায়, শিবাস শুধু গণহত্যা ই নয় কথা বলেছেন রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের ওপর মিয়ানমারের সরকারি বাহিনীর দীর্ঘদিনের নিপীড়ন নিয়ে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে মিয়ানমারের রাখাইন থেকে সেনাঅভিযানের মুখে প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে সীমান্ত সংলগ্ন বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলার টেকনাফ ও উখিয়া উপজেলায় স্থাপিত অস্থায়ী ক্যাম্পগুলোতে মানবেতর জীবনযাপন করছে। ইতোমধ্যেই কয়েকদফা রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও মিয়ানমারের সদিচ্ছার অভাবে তা আলোর মুখ দেখেনি।

Please Share This Post in Your Social Media

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

More News Of This Category
© 2018 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | dbdnews24.com
Site Customized By NewsTech.Com