1. azadzashim@gmail.com : বিডিবিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম :
  2. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :

কক্সবাজারের জনগণের মৃত্যু দায় নিবে সরকার : ছাত্র ইউনিয়ন।

  • Update Time : বুধবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২০
  • ৯১ Time View

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : গত ১৩ এপ্রিল কক্সবাজারের বিভিন্ন স্থানীয় পত্রিকায় ‘কক্সবাজারে কোনো ভেন্টিলেটর নেই : সিভিল সার্জন, জানা নেই স্বাস্থ্য মন্ত্রীর!’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের মারফতে কক্সবাজারের জনগনের জীবন রক্ষা ও করোনা ভাইরাসের ঝুৃৃঁকি হতে কক্সবাজারবাসীকে বাঁচানোর জন্য জেলায় সরকারি হাসপাতাল সমূহে পর্যাপ্ত ভেন্টিলেটর নিশ্চিত করার দাবী ও সরকারে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কান্ডজ্ঞানহীন আচরণের প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি প্রদান করেছে ছাত্র ইউনিয়ন কক্সবাজার জেলা সংসদ।

দপ্তর সম্পাদক আপন দাশ স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে কক্সবাজার জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি অন্তিক চক্রবর্তী ও সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) উত্তম মারমা জানান, ভেন্টিলেটরে সেটআপের বিষয়টি নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক কথা বলতে অনীহা প্রকাশ করা এবং পরে মন্ত্রী নিজেই এ প্রতিবেদকের কাছে ফোন করে জানতে চাওয়া কক্সবাজারে যে ভেন্টিলেটর নেই এটি নিশ্চিত কিনা? মেডিকেল কলেজে খবর নিয়েছি কি না? বিষয়টি নিয়ে সরকারের একজন মন্ত্রীর এমন আচরণ প্রমাণ করে সরকার বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের প্রকোপে জনগনকে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা দিতে ব্যার্থ।

এতে আরও বলা হয়, ‘উদ্বেগের আরও কারণ হচ্ছে জাতির মহাবিপদের মুহূর্তে দুর্যোগ মোকাবিলার কোনো সমন্বিত উদ্যোগ না নিয়ে উল্টো বাস্তবতা অস্বীকার করে, সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন বলে সরকারের মিথ্যা সাফল্যের বন্দনায় মন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের ব্যস্ততা এবং দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য আমাদের গভীরভাবে চিন্তিত, ক্ষুব্ধ ও হতাশ করে।

কোভিড-১৯ ভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার মধ্য দিয়ে বৈশ্বিক মহামারিতে রূপ নিয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মাপকাঠিতে করোনা সংক্রমণের যে চারটি স্তরের কথা বলা হয়েছে বাংলাদেশ এর তৃতীয় স্তরে প্রবেশ করেছে, অর্থাৎ দেশের ভেতরেই এই রোগ কমিউনিটি সংক্রমণের পর্যায়ে ঢুকে পড়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। চতুর্থ স্তরটি হলো, ব্যাপক সংক্রমণ ও ব্যাপক মৃত্যু।

সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রীর এমন কান্ডজ্ঞানহীন আচরন জনগণকে মৃত্যুকুপের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা চাই, জেলা প্রশাসন আর কালক্ষেপণ না করে করোনা মহামারি রোধের পরিকল্পনা ও কার্যকর প্রণালী জনসমক্ষে প্রকাশ করবে। কক্সবাজারের প্রতিটি জেলা-উপজেলায় কতজন স্বাস্থ্যকর্মী আছেন এবং তাদের সুরক্ষার পর্যাপ্ত সরঞ্জাম কবে পর্যন্ত নিশ্চিত করা যাবে, প্রতিটি হাসপাতালে সর্বোচ্চ কতটি বেড প্রস্তুত করা যাবে, প্রতিটি হাসপাতালে কতটি ভেন্টিলেটর প্রস্তুত আছে, করোনা পরীক্ষার কতগুলো কিট আছে, প্রতিদিনের ব্যবহারের মানসম্মত গ্লাভস, মাস্ক ইত্যাদির মজুত কতদিনের মধ্যে নিশ্চিত করা যাবে, এসব তথ্য প্রকাশ করতে হবে।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনের সাথে ছাত্র ইউনিয়ন কক্সবাজার জেলা সংসদের BSU COX COVID-19 RESPONSE TEAM এর আহবায়ক আজীজ রিপন ও সদস্য সচিব তনয় দাশের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি টিম সাক্ষাত করবে। সাক্ষাতের সময় করোনা ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধ ও লক ডাউনে থাকা কক্সবাজারের জনগনের বিভিন্ন সমস্যা ও সংকট সমাধানে গণ-দাবী জেলা প্রশাসক বরাবর পেশ করবে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

More News Of This Category
© 2018 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | dbdnews24.com
Site Customized By NewsTech.Com