1. azadzashim@gmail.com : বিডিবিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম :
  2. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :

কক্সবাজর ১২ এপ্রিল পর্যন্ত করোনা মুক্ত; এযাবৎ ১৭৮ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ

  • Update Time : রবিবার, ১২ এপ্রিল, ২০২০
  • ৫৩ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে সর্বশেষ শনিবার আরো ৩২ জন সন্দেহভাজন রোগীর করোনা ভাইরাসের নমুনা টেষ্ট করা হয়েছে। তবে বরাবরের মতোই সবার টেষ্ট রিপোর্ট এসেছে নেগেটিভ। কক্সবাজার সদর উপজেলার ৬ জন ও শরণার্থী ২ জন ছাড়াও পেকুয়া, চকরিয়া, উখিয়া, রামু, টেকনাফ এবং পার্বত্য জেলা বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির রোগীও রয়েছেন।

এনিয়ে গত ১২ দিনে এই ল্যাবে ১৭৮ জন সন্দেহভাজন রোগীর করোনা টেষ্ট করা হয়েছে। যাদের প্রত্যেকেরই করোনা ভাইরাস রিপোর্ট এসেছে নেগেটিভ। ১২ দিনের পরীক্ষায় একজনও করোনা ভাইরাস রোগী শনাক্ত না হওয়ায় চিকিৎসকরা স্বস্তিতে রয়েছেন।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ও রক্তরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. অনুপম বড়ুয়া বলেন, একজন রোগী পাওয়া গেলেই কক্সবাজার জেলার জন্য আতঙ্কের। কারণ এটা গাণিতিক হারে বাড়তে থাকে।

এদিকে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ক্লিনিক্যাল ট্রফিক্যাল মেডিসিন বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ডা. মো. শাহজাহান নাজির করোনা ভাইরাস টেষ্টের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গতকাল শনিবার কক্সবাজার সদর হাসপাতাল, রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির, উখিয়া, টেকনাফ, পেকুয়া, চকরয়িা উপজেলা এবং পার্বত্য জেলা বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ফ্ল্যু সেন্টার থেকে মাত্র ৩২ জন সন্দেহভাজন রোগীর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। আর ওইসব নমুনা সকাল থেকে দুপুরের মধ্যে টেষ্ট করা হয়েছে। তবে প্রত্যেকটি নমুনারই পরীক্ষা রিপোর্ট এসেছে নেগেটিভ।

ডা. শাহজাহানের দেয়া তথ্য মতে, রোববার পরীক্ষা হওয়া রোগীদের মধ্যে কক্সবাজার সদর উপজেলার ৬জন, পেকুয়ার ৩ জন, চকরিয়ার ৬ জন, উখিয়া একজন, রামুর ৩ জন, টেকনাফের ২ জন, রোহিঙ্গা শিবিরের ২ জন ও নাইক্ষ্যংছড়ির ৯ জন রোগী রয়েছেন।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. অনুপম বড়ুয়া বলেন, কক্সবাজার ল্যাবে প্রতিদিনই ৯৬ জন রোগীর নমুনা পরীক্ষার সুযোগ থাকলেও উপজেলা পর্যায় পর্যাপ্ত পরিমাণ নমুনা আসছে না।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের কক্সবাজার জেলা আহ্বায়ক ডা. মাহবুবুর রহমান এই পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় কোন করোনা রোগী না পাওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন।

তার মতে, একজন বয়স্ক মহিলার শরীওে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেলেও তিনি এখন সুস্থ আছেন।

প্রসঙ্গত, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবটিকে ঢাকাস্থ রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআর করোনা ভাইরাস পরীক্ষার জন্য নির্ধারণ করেছে। গত পহেলা এপ্রিল থেকে ল্যাবটি চালু হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

More News Of This Category
© 2018 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | dbdnews24.com
Site Customized By NewsTech.Com