1. azadzashim@gmail.com : বিডিবিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম :
  2. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :

হাসান কামরুল’র চিঠি

  • Update Time : রবিবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৯
  • ১৫৪ Time View

প্রিয় ঊর্মি,
আজকে তোমাকে একটা চিঠি দেয়ার কথা। সারাদিন খুব ব্যস্ত সময় কেটেছে। ফিল্ড, অফিস, তারপর রাস্তার পাশের হোটেলে অল্প কিছু খাওয়া। এরপর ফিরেছি ডেরায়।সন্ধ্যা পার হয়ে রাতের বেশ কিছুটা সময় তখন অতিক্রান্ত। ক্লান্ত খুব আজ, খুব বেশি ক্লান্ত। কিছুটা অসুস্থও বোধ করছি। সিগারেটের জন্যই কিনা কে জানে, আজ খানিকটা শ্বাসকষ্ট অনুভব করলাম,সাথে খুশখুশে কাশি, বুকে চিনচিনে ব্যথা। অফিসের পাশেই ফ্রিতে ডাক্তার পেয়ে দেখিয়ে নিলাম। ব্যাটার চোখমুখ দেখে ভয় পাবো কিনা ভাবছিলাম তখন তিনিই বললেন, কিছুদিন শুয়ে থাকতে হবে আর সিগারেটের বন্ধুত্ব ছাড়তে হবে। ডাক্তারদের এই এক দোষ, কিছু হলেই সিগারেট ছাড়ো! আরে বাবা সিগারেট ছেড়ে দিলে তোকে লাগছে কেন? আমি সিগারেট খাবো, তুই চিকিৎসা করবি, ব্যাস হয়ে গেল! তা নয়, ওষুধ লিখে দেবে সাথে সিগারেট ছেড়ে দেয়ার ফ্রি পরামর্শ! এইটা কিছু হইলো!!??

ঢপের কেত্তন শেষ, চলো অন্য কথা বলি।

আমাকে কিছু দেয়ার কথা ছিলো তোমার,দাওনি। অন্যভাবে বলি, আমার কিছু নেবার ছিলো তোমার কাছ থেকে, নেয়া হয়নি। তলিয়ে যাচ্ছিলাম আমি, যখন আমি সত্যি তলিয়ে যাচ্ছিলাম, তখন দু’হাতের সমস্ত আঙ্গুলে খামচে ধরেছিলাম পাহাড়। মৌন পাহাড় কিছুটা কেঁপে উঠেছিলো, টের পেয়েছিলাম।ভেবেছিলাম পেয়ে গেছি আশ্রয়। তখন দমকা বাতাসে উড়ে এসেছিলো শুকনো পাতা, লেগেছিলো চোখেমুখে। শুকনো খটখটে পাহাড় জলের খোঁজে আকাশের দিকে তাকাতেই কিছুটা বৃষ্টি নেমেছিল। দু’জনেই শান্ত হয়েছিলাম জলধারায়।এরপর বসন্ত এসেছিলো, পাহাড়ের দেয়া মাধুরিতে পূর্ণ হবে চাওয়া-রাত্রি সকাল দুপুর বিকেল বেঘোর কাটিয়ে দেবো, এরকমই তো কথা ছিলো, তাই না প্রিয়?
এসব এখন অতীত।

হ্যাঁ, আমি কিছুটা কাপুরুষ। দুর্ধর্ষ প্রতিরক্ষাব্যূহ ভেদ করে তোমাকে ছিনিয়ে নেবো,পারবো না কখনো। ঊষর নয় উর্বর ভুমিই খুঁজেছি চিরকাল ফুল ফোটানোর জন্য। লক্ষকোটি উদ্ভিদের দিকে চেয়ে দেখ,শেকড় প্রোথিত উর্বর মাটিতে। তোমার চোখের তারায় স্থির তাকিয়ে থেকে ভেবেছি, তুমিই সাহায্য করবে সফল চাষাবাসে, হয়নি।আমি দীর্ঘ সম্মোহনে সম্মোহিত, পেছনে বয়ে চলে গেছে সুদীর্ঘ সময়, সরে গেছো তুমি, টের পাইনি।আমার টের পাওয়ার কথাও নয়,আস্থা রেখেছিলাম।

আগে যখন ভাবতাম তুমি কখনো ভুলে যাবে আমায়, চিনচিনে ব্যথা হতো বুকে। এখন যখন বুঝতে পারছি তুমি নেই, যখন অনেক খুঁজেও টের পাইনা তোমার অস্তিত্ব-তীব্র আলোতে কিংবা ঘোর অন্ধকারে, একটি বুনো ঘোড়া ক্ষতবিক্ষত করে আমাকে। অথচ কথা ছিলো পরম নির্ভরতায় তোমার কোলে মাথা রেখে স্মৃতির বালুতটে আঁকিবুঁকি করবো। রাশি রাশি কবিতা বাতাসে ছড়াবো, আর সৈকতের বালি খুঁটে খুঁটে খুঁজবো স্বপ্ন আর বিশ্বাস।

তোমার সজীব মুখে লেগে থাকা হাসির আভা, আর চোখের তারায় উড়ে বেড়ানো আন্তরিক সামুদ্রিক হাওয়া, দিকভ্রান্ত নাবিকের মত ঘুরে বেড়াবো তোমার নিজস্ব সৈকত জুড়ে। আন্তরিক সখ্যতার কৃপণতায় বহুদিন বন্ধ থাকা কবিতার চাষবাস ফের শুরু হবে দ্বিগুণ গতিতে।

একদিন আমার পেছনের আমি আমাকে নয়, প্রতিবিম্বে পেয়েছিলো তোমাকে। অজান্তেই আমাদের নির্মাণ করা ভিন্নতর প্রেক্ষাপট, অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়েছিলাম সীমাহীন সম্পর্কের দাবীতে।আমি বুঝতে পারিনি আমাদের চুম্বনের সিলমোহর কে ভুলে, পেছনে চোরাবালি রেখে তুমি চলে যাবে ।

আমার কবিতারা এখন অবসন্ন আর নিশ্চুপ । সবার পুকুরে প্রথাগত মাছের অবাধ সাঁতার, শুধু একজন কবির পুকুরের জল নড়েচড়ে না।

ভালো থেকো।
অনন্ত।
কুতুপালং থেকে।।
১৮/০৩/২০১৯।।

Please Share This Post in Your Social Media

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

More News Of This Category
© 2018 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | dbdnews24.com
Site Customized By NewsTech.Com